মাদারীপুরে দারিদ্র বিমোচনে কাজ করছে এলজিইডি

নিজস্ব প্রতিবেদক
মোঃ আরিফুর রহমান, জেলা প্রতিনিধি, মাদারীপুর:
প্রকাশিত: বুধবার ৬ই অক্টোবর ২০২১ ০৬:৪৭ অপরাহ্ন
মাদারীপুরে দারিদ্র বিমোচনে কাজ করছে এলজিইডি

গত দেড় বছর যাবত মহামারি করোনা ও দেশের প্রতিটি জেলায় লকডাইন ছিল। ছিল সকল কাজকর্ম বন্ধ। এমন অবস্থায় দেশের দরিদ্র আরও দারিদ্রসীমার নিচে নেমে আসে । এই দরিদ্র পরিবারদের স্বামীর পাশাপাশি স্ত্রীকে এবং বিধবাসহ দুঃস্থ্য পরিবারকে স্বচ্ছল করার লক্ষে দারিদ্র বিমোচন করার উদ্দেশ্যে মাদারীপুর জেলায় মাদারীপুর স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তরের মাধ্যমে পল্লী সড়ক ও কার্লভার্ট মেরামত, পাকা সড়কের শোল্ডারের কাজে ৮৪জন ও আর ই আর এমপি প্রকল্পে মাধ্যমে ৪ উপজেলায় ৬শ জন শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে আত্মকর্মসংস্থানের মাধ্যমে তাদের পরিবারকে স্বচ্ছল করা হচ্ছে। 


করোনা কালীন সমেেয়ও অবকাঠামো গত উন্নয়নের পাশাপাশি গ্রামীন দুঃস্থ্য নারীদের আত্মকর্মসংস্থানের জন্য মাদরীপুর জেলায় কাজ করে যাচ্ছে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর। পল্লী সড়ক ও কার্লভার্ট মেরামত কমসূচীর আওতায় ৮৪ জন নারী শ্রমিক  নিয়মিতভাবে পাকা সড়কের  শোল্ডারের কাজ করছে। এদিকে আরই আর এমপি প্রকল্পে জেলার ৪টি উপজেলার ৬০টি ইউনিয়নে ৬ শ জন দুঃস্থ্য নারী শ্রমিক কাজ করছে। জেলায় ১বছরে ৯৮লক্ষ টাকা বরাদ্ধে পল্লী সড়ক ও কার্লভার্ট মেরামতের কাজে নিয়োজিত শ্রমিকদের প্রতিদিন জন প্রতি ৩০০ টাকা এবং সারা বাংলাদেশে ১০২০৭.৫০ লক্ষ টাকায় ৪বছর  মেয়াদে সড়ক রক্ষনাবেক্ষন নারী শ্রমিকদের জন প্রতি ২৫০ টাকা করে দেয়া হচ্ছে। তবে ২ বছর মেয়াদী ও ৪ বছর মেয়াদী এ দুটো প্রকল্পের মোট ৬৮৪ জন শ্রমিকের প্রত্যেকের কাছ থেকে সঞ্চয়ের জন্য প্রতিদিন অল্প কিছু টাকা জমা রাখা হচ্ছে। যার থেকে প্রকল্পের কাজ শেষ হলে তাদের আত্মকর্মসংস্থান এবং পুনঃবাসনের জন্য প্রতেক অসহায় ও দুঃস্থ্য নারী শ্রমিক পাবে ৭২ হাজার টাকা।


কাজ করতে আসা সালমা বেগম বলেন, আগে আমরা বিভিন্ন বাসা বাড়ীতে কাজ করে পরিবার নিয়ে অনেক সমস্যায় ছিলাম কিন্ত এই এলজিইডির কাজ করে এখন পরিবার নিয়ে অনেক ভাল আছি। আর এরজন্য ধন্যবাদ জানায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ মাদারীপুর এলজিইডিকে ।


মাদারীপুর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর(এলজিইডি) নির্বাহী প্রকৌশলী বাবুল আক্তার বলেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী ও এলজিইডি মিলে আমার দারিদ্র বিমোচন করার লক্ষে আমাদের ৪টি উপজেলায় দুটি প্রকল্পে ৬৮৪জন কাজ শ্রমিক কাজ করছে এবং এই কাজের মাধ্যমে প্রতিটি পরিবার তাদের পরিবাকে স্বচ্ছল করে তুলতে পেরেছে।