ঝালকাঠিতে উপজেলা নির্বাচন ঘিরে বহিষ্কারের হিড়িক!

নিজস্ব প্রতিবেদক
জেলা প্রতিনিধি (ঝালকাঠি)
প্রকাশিত: শনিবার ৪ঠা মে ২০২৪ ০৬:২৬ অপরাহ্ন
ঝালকাঠিতে উপজেলা নির্বাচন ঘিরে বহিষ্কারের হিড়িক!

ঝালকাঠিতে আওয়ামী লীগের পাঁচ নেতাসহ ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও কৃষক লীগের ১০জন নেতাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।



শুক্রবার (৩ মে) সদর উপজেলার কীর্তিপাশা ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের পাঁচ নেতাকে বহিষ্কারাদেশ দেওয়া হয়। উপজেলার ৫নং কীর্তিপাশা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শংকর মুখার্জী ও সাধারণ সম্পাদক মো. মোস্তফা কামাল বাবুলের দলীয় প্যাডে স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। 


এছাড়া গত এক মাসের মধ্যে বিভিন্ন সময় ছাত্রলীগের ৩জন এবং যুবলীগের ১জন ও কৃষক লীগের ১জন নেতাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।



জানা গেছে, আমু সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে কাজ না করায় সংগঠন বিরোধী কার্যকলাপ দেখিয়ে বহিষ্কার করা হয়েছে। বহিষ্কৃতরা হলেন, ৫ নং ওয়ার্ড কীর্তিপাশা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল বারেক হাওলাদার ও সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ রাজিব হাওলাদার। ৪ নং ওয়ার্ড কীর্তিপাশা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. হোসেন আলী হাওলাদার ও সাধারণ সম্পাদক সুজিত ঘরামী এবং ৯ নং ওয়ার্ড কীর্তিপাশা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ মনির হোসেন খান।



নলছিটির মোল্লারহাট ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেন খসরু, ঝালকাঠি সদর উপজেলার ৭নং পোনাবালিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাকিউর রহমান শাকিল, শেখেরহাট ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক স্বপন দেবনাথ, সদর উপজেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আজগর মল্লিক এবং শেখেরহাট ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম। 



এছাড়া আলাদা আলাদা চিঠিতে প্রত্যেকের উদ্দেশ্য বলা হয়, ‘আপনি গত কয়েক মাস ধরে সংগঠন বিরোধী কার্যকলাপে লিপ্ত রয়েছেন। তাই আপনাকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পদ থেকে অস্থায়ী ভিত্তিতে বহিষ্কার করা হলো। পরবর্তীতে সঠিকভাবে সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে মনোনিবেশ না করলে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হবে।



মোল্লারহাট ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেন খসরু বলেন, ফেসবুকে প্রার্থী মোস্তাফিজুরের ছবিতে লাইক-কমেন্ট করায় তাঁকে বহিষ্কার করা হয়েছে। বহিষ্কারদেশে কারণ জানতে ছাত্রলীগের দায়িত্বশীলদের ফোন দেওয়া হলে বলেছেন, লিডার (আমু) জানেন। লিডারকে ফোন দিলে বলেছেন, যারা বহিষ্কার করেছেন তারা জানেন, আমি জানি না। 



পোনাবালিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাকিউর রহমান শাকিল বলেন, বহিষ্কারের পর বিভিন্ন জনের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা বলেছেন, লিডারের প্রার্থী আরিফ খানের নির্বাচন করতে হবে।



উল্লেখ্য, ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদের দ্বিতীয় ধাপে ঝালকাঠি সদর ও নলছিটি উপজেলা পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সমর্থিত সদর উপজেলায় আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী (বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান) খান আরিফুর রহমান ও নলছিটি উপজেলায় আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী তছলিম উদ্দিন চৌধুরী। তাদের পক্ষে কাজ না করায় নির্বাচন ঘিরে বহিষ্কারের হিড়িক পরেছে।