দক্ষিণাঞ্চলবাসীর উন্নত চিকিৎসা সেবার প্রত্যয়ে শরীফ হোসেন-সোনাবানু স্পেশালাইজ্ড হাসপাতালের যাত্রা শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক
জেলা প্রতিনিধি, বরিশাল।
প্রকাশিত: রবিবার ১৫ই মে ২০২২ ১০:৩৭ অপরাহ্ন
দক্ষিণাঞ্চলবাসীর উন্নত চিকিৎসা সেবার প্রত্যয়ে শরীফ হোসেন-সোনাবানু স্পেশালাইজ্ড হাসপাতালের যাত্রা শুরু

দক্ষিণাঞ্চলবাসীকে উন্নতমানের চিকিৎসা সেবার অঙ্গীকার নিয়ে পটুয়াখালীতে গড়ে উঠেছে অত্যাধুনিক শরীফ হোসেন-সোনাবানু স্পেশালাইজ্ড হাসপাতাল। পটুয়াখালী শহরের প্রাণ কেন্দ্র চৌরাস্তায় গড়ে উঠেছে হাসপাতালটি। এখানে রয়েছে ২৪ ঘন্টা গুরুত্বের সাথে রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেয়ার ব্যবস্থা। হাসপাতালটিতে রয়েছে স্বাস্থ্যসম্মত মনোরম পরিবেশ। হাসপাতালটির অন্যতম আর্কষণ হচ্ছে দেশের নামকরা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকবৃন্দ এখানে নিয়মিত রোগী দেখবেন।


পাশাপাশি রোগ নির্ণয়ে রয়েছে অত্যাধুনিক ল্যাবরেটরি। পরিপূর্ণ ডিজিটাল এক্স-রে মেশিন। ব্লাড ও ইউরিন কালচার মেশিন। স্যামসাং কোম্পানির কালার-ডপলার আল্ট্রাসনোগ্রাম মেশিন। নবজাতক শিশুর জন্য ইনকিউবেটর ও ফটোথেরাপি এর ব্যবস্থা। বিশেষজ্ঞ সার্জন দ্বারা নরমাল ডেলিভারী, সিজারিয়ান অপারেশনসহ সকল ধরণের অপারেশনের সু-ব্যবস্থা। অপারেশনের পরে রোগীর নিবিড় পর্যবেক্ষণ। সার্বক্ষণিক ডাক্তার ও নার্সদের সেবা। পুরুষ ও মহিলা রোগীদের জন্য আলাদা ওয়ার্ড। অত্যাধুনিক অপারেশন থিয়েটার। ডিজিটাল এ্যানেস্থেশিয়া মেশিন। এছাড়া সকল রোগীদের জন্য রয়েছে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার।


এখানে মেডিসিন বিশেষজ্ঞ, প্রসূতি ও স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞ, অর্থোপেডিক সার্জন, জেনারেল এন্ড ল্যাপারোস্কোপিক সার্জন। নাক, কান, গলা ও হেড নেক সার্জারী বিশেষজ্ঞ, শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ, কিডনী ও মেডিসিন বিশেষজ্ঞ, নিউরোমেডিসিন ও মেডিসিন বিশেষজ্ঞ, ইউরোলজি ও সার্জারী বিশেষজ্ঞ, হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ। এছাড়া রয়েছে চোখের সকল সমস্যার জন্য চক্ষু বিভাগ।


এছাড়া সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল (সিএমএইচ) বরিশাল এর অর্ধডজন নামকরা চিকিৎসক এখানে রোগী দেখবেন। অল্প খরচে অত্যাধুনিক চিকিৎসা সেবা পাওয়ার জন্য শরীফ হোসেন-সোনাবানু স্পেশালাইজ্ড হাসপাতাল এর বিকল্প নেই। এখানে রয়েছে গরিব ও অসহায় রোগীদের জন্য বিশেষ ছাড়। 


চিকিৎসা নিতে আসা এক রোগীর স্বজন বলেন, শরীফ হোসেন-সোনাবানু স্পেশালাইজ্ড হাসপাতাল এর অত্যাধুনিক সকল চিকিৎসাই রয়েছে। উপকূলবাসী এ হাসপাতাল থেকে সকল চিকিৎসা সেবাই পাবেন। তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে স্বাস্থ্য সেবার মান অক্ষুন্ন রাখতে সচেতন থাকতে হবে। পাশাপাশি অসহায় রোগীরা যেন স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত না হয় সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে।