ধর্মঘট প্রত্যাহার, লঞ্চ চলাচল শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক
বিশেষ প্রতিবেদক, জেলা প্রতিনিধি
প্রকাশিত: সোমবার ২৫শে জানুয়ারী ২০২১ ০৩:৩০ অপরাহ্ন
ধর্মঘট প্রত্যাহার, লঞ্চ চলাচল শুরু

ঢাকায় আদালতে যাত্রীবাহী নৌযানের দুজন মাস্টারের (চালক) জামিন বাতিল করে কারাগারে পাঠানোর প্রতিবাদে ডাকা ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নিয়েছেন নৌযান শ্রমিকরা। রাতেই লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক হবে বলে জানিয়েছেন তারা।


সোমবার রাত ৮টার দিকে বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান কমোডর গোলাম সাদেক সাংবাদিকদের এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।এর আগে দুই লঞ্চ মাস্টারের জামিন বাতিলের প্রতিবাদে দুপুরে এই ধর্মঘটের ডাক দেন নৌযান শ্রমিকরা।


শ্রমিকদের ধর্মঘটের কারণে ঢাকা থেকে বরিশালসহ দেশের দূরপাল্লার কোনো রুটে আজ লঞ্চ ছেড়ে যাবে না বলে জানিয়েছিল বিআইডব্লিউটিএ। যাত্রীদের বিকল্প পথে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানায় কর্তৃপক্ষ। তবে পরবর্তী সময়ে নৌযান শ্রমিকদের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে তাদের ধর্মঘট প্রত্যাহারে সম্মত করে বিআইডব্লিউটিএ।


এক বছর আগে চাঁদপুরের হরিনাঘাটে অ্যাডভেঞ্চার-১ ও অ্যাডভেঞ্চার-৯ লঞ্চের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। কেউ মারা না গেলেও লঞ্চ দুটি ওই ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ নিয়ে মেরিন আদালতে যে মামলা হয়েছিল, তাতে দুই লঞ্চের মাস্টার রুহুল আমিন ও জামাল হোসেন জামিনে ছিলেন। সোমবার তারা সেই মামলায় হাজিরা দিতে গেলে আদালত জামিন বাতিল করে তাদের কারাগারে পাঠিয়ে দেয়।


এর প্রতিবাদে নৌ শ্রমিকরা কর্মবিরতিতে গেছে জানিয়ে বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি শাহ আলম চৌধুরী বলেন, ‘কোথায় দুর্ঘটনায় ঘটেছে, তার হদিস নেই, চার মাস এই দুজনের সার্টিফিকেট 'হোল্ড' করে রাখা হয়েছিল। জামিন না দেওয়ায় কোনো কারণ ছিল না। শ্রমিকরা প্রতিবাদ জানাতে ঘাট থেকে লঞ্চ সরিয়ে নিয়েছে।’


নৌযান শ্রমিক ফেডারেশন বরিশাল জেলা সভাপতি শেখ আবুল হাসেম জানান, মেরিন আদালতে দুই মাস্টারের জামিন বাতিল করার পরই শ্রমিকরা সংক্ষুব্ধ হয়। কারান্তরীণ দুই নৌযান মাস্টারের মুক্তির দাবিতে তাৎক্ষণিক ধর্মঘট শুরু করেন নৌযান শ্রমিকরা।


এদিকে কোনো ধরনের পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই আকস্মিক দূরপাল্লা রুটের যাত্রীবাহী নৌযানে ধর্মঘট শুরু হওয়ায় বিপাকে পড়েন হাজার হাজার যাত্রী। অনেকে সদরঘাটে গিয়ে ফিরে আসেন।